লোটে শেরিং: ভূটানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী

ডাঃ মোঃ আজিজুল হক:   নতুন দল, নতুন চিন্তা, বয়সে তরুণ। মেডিক্যালের কঠিন অধ্যবসায়; অবস্থান বাংলাদেশে।
মিশেছেন এখানকার ছাত্র-শিক্ষক ও রোগীদের সাথে। পরিচিত হয়েছেন, অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন বাংলাদেশের সমসাময়িক রাজনীতি, অর্থনীতি সামাজিক পরিবর্তন থেকে। এখানকার অর্জিত অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে দেশের জনগণের আশাআকাংখার চিত্র রচিত করেছেন। যার ফলশ্রুতিতে তার দেশের জনগণ তাকে আজকের এই অবস্থানে বসিয়েছেন।
আবার প্রধানমন্ত্রী হয়ে বাংলাদেশকে বিশেষ করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ, বন্ধুবান্ধব ও শিক্ষকদের কাছে চলে এসেছেন।
বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া বাংলাদেশের চিকিত্সকদের ও রয়েছে সোনালী অতীত। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধসহ বাংলাদেশের যেকোনো জাতীয় দুর্যোগে, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে, দেশবিদেশে চিকিত্সা সেবার মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে চিকিৎসক সমাজ। বর্তমানে বাংলাদেশের শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হার উল্খেযোগ্য হারে কম; রিদরোগ, ডায়াবেটিস ও সার্জারি চিকিত্সার মান অনেক উন্নতি লাভ করেছে। মেডিক্যাল শিক্ষার মান উন্নত বিধায় পৃথিবীর বহু দেশের শিক্ষার্থীগণ এদেশ থেকে এমবিবিএস ও পোষ্টগ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি অর্জন করছেন।

প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং এর আদর্শ বড় ডাক্তার নয়, বড় মনের মানুষ হতে হবে। রোগীদের প্রতি আরো মনোযোগী হতে হবে।
এদেশের ডাক্তার সমাজ ও রাজনীতিবিদগণ তার ideology কে কাজে লাগিয়ে দেশের জনগণ ও রোগীদের সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করতে পারে – আমার বিশ্বাস। আমাদের অতীত ও বর্তমান অবস্থান এর সাথে ভূটানের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর
চিন্তা চেতনাকে কাজে লাগিয়ে আমরাও প্রতিজন ডাক্তার হয়ে যেতে পারি এক একজন লোটে শেরিং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *