বার্সার সাথে ব্যবধান কমালো রিয়াল

আলাভেসকে ৩-০ গোলে পরাজিত করে লা লিগায় টানা চতুর্থ জয় তুলে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। আর এতে করে টেবিলের শীর্ষে থাকা দুই দল বার্সেলোনা ও অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের থেকে পয়েন্টের ব্যবধানও কমাতে সক্ষম হয়েছে গ্যালাকটিকোরা।

এর আগে দিনের শুরুতে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ রিয়াল বেটিসের কাছে পরাজিত হওয়ায় ও রোববার বার্সেলোনা ভ্যালেন্সিয়ার সাথে ২-২ গোলে ড্র করায় রিয়ালের সামনে সুযোগ ছিল এই সুবিধা কাজে লাগানোর। যার শতভাগ আদায় করে রিয়ালকে দাপুটে জয় উপহার দিয়েছেন করিম বেনজেমা, ভিনসিয়াস জুনিয়র ও বদলী খেলোয়াড় মারিয়ানো ডিয়াজ।

২২ ম্যাচ পর এই প্রথম কোন সপ্তাহে তিন শীর্ষ ক্লাবের মধ্যে শুধুমাত্র মাদ্রিদই জয়ের ধারা ধরে রাখলো। আর এতেই মাদ্রিদের ধারাবাহিকতার প্রমান পাওয়া পাওয়া গেছে। ৫০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছে বার্সেলোনা।

অন্যদিকে ৪৪ ও ৪২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ও রিয়াল মাদ্রিদ। আগামী সপ্তাহে সিটি ডার্বিতে জিততে পারলে মাদ্রিদ অ্যাথলেটিকোকে ছাড়িয়ে যাবে। কিন্তু তারপরেও তারা বার্সেলোনার পিছনেই থাকবে। বুধবার কোপা ডেল রে ক্ল্যাসিকোতে মুখোমুখি হচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি বার্সা-রিয়াল।

ম্যাচ শেষে রিয়াল কোচ সানটিয়াগো সোলারি বলেছেন, ‘শেষ পর্যন্ত আমরা সবকিছুর জন্য লড়াই চালিয়ে যাব। আজ ব্যবধান কমানোর সত্যিকারের ক্ষুধা আমাদের মধ্যে ছিল। তাতে আমরা সফলও হয়েছি।’

অক্টোবরে মৌসুমের প্রথম এল ক্ল্যাসিকোতে বার্সার কাছে ৫-১ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার পর তৎকালীন কোচ জুলেন লোপেতেগুইয়ের বিদায় নিশ্চিত হয়েছিল। কিন্তু আলাভেসের কাছে ওই মাসেই ১-০ গোলের পরাজয় রিয়ালের ব্যর্থতার ষোলকলা পূর্ণ করেছিল। ৮৭ বছরে রিয়ালের বিপক্ষে আলাভেসের এটাই ছিল প্রথম জয়।
গত চার ম্যাচে বেনজেমা এই নিয়ে ষষ্ঠ গোল করেছেন। সব মিলিয়ে এবারের মৌসুমে তার গোলসংখ্যা এখন পর্যন্ত ১৭টি। ২০১৬ সালের পর এটি তার সেরা পারফরমেন্স। লা লিগা খেলোয়াড় হিসেবে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় তার থেকে শুধুমাত্র বেশি গোল করেছেন লিওনেল মেসি।

গ্যারেথ বেল ও ভিনসিয়াসকে সাথে নিয়ে সম্প্রতি রিয়ালের আক্রমণভাগের নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন বেনজেমা। তবে বেলকে ছাপিয়ে তরুণ ভিনসিয়াসকেই বেনজেমার সবচেয়ে বিপদজনক পার্টনার হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বেনজেমা ও বেলকে যখন বদলী বেঞ্চে পাঠানো হয় তখন সমর্থকদের মধ্যে যে ধরণের উত্তেজনা লক্ষ্য করা গেছে তার বিপরীত চিত্র ছিল ৬৩ মিনিটে বেলের পরিবর্তে মার্কো আসেনসিও যখন মাঠে নামেন।

সোলারি বলেছেন, ‘এটা সত্যিই কঠিন। আলাভেস আজ দারুণভাবে আমাদের ডিফেন্স করেছে। গোল করার জন্য খুব বেশি জায়গা আজ তারা আমাদের দেয়নি।’

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ৩০ মিনিটে বামদিক থেকে সার্জিও রেগুলিয়নের ক্রসে বেনজেমা গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন। এক গোলে পিছিয়ে থেকে আলাভেসে বেশ কয়েকটি আক্রমণ চালালেও রিয়াল তাদেরকে কোনো সুযোগ দেয়নি। টমাস পিনার শট পোস্টের ধারে কাছেও ছিল না, জনি রড্রিগুয়েজের প্রচেষ্টা দারুনভাবে রুখে দেন রিয়াল গোলরক্ষক থিবাট কোর্তোয়া। ৮০ মিনিটে আসেনসিও’র পাস থেকে ব্যবধান দ্বিগুন করেন ভিনসিয়াস। ইনজুরি টাইমে ইসকোর ক্রস থেকে ডিয়াজের ডাইভিং হেডে ব্যবধান আরো বাড়িয়েছে রিয়াল।

এর আগে দিনের শুরুতে আলভারো মোরাতার অভিষেক ম্যাচেও রিয়াল বেটিসের কাছে ১-০ গোলের হতাশাজনক পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে অ্যাথলেটিকোকে। স্পট কিক থেকে সার্জিও কানালেসের গোলে বেটিসের জয় নিশ্চিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *