আমার ঈদ –> আমাদের ঈদ:শ্রেয়সী শবনম শ্রেয়া

আমার ঈদ –> আমাদের ঈদ:

  • শ্রেয়সী শবনম শ্রেয়া

ঈদ…
আমার কাছে ঈদ মানে খুশী,ঈদ মানে আনন্দ… আমার কাছে ঈদ অর্থ প্রবল উৎসাহের সঙ্গে একটা নূতন সকালের জন্যে অপেক্ষা….

আমরা যারা ইসলাম ধর্মের অনুসারী তাঁরা সবাই চরম আগ্রহের সঙ্গে অপেক্ষা করে থাকি বছরের ২টো ঈদের জন্যে।আপাতদৃষ্টিতে মনে হতে পারে ঈদ বুঝি সব্বার জন্যে খুব আনন্দ,খুব সুখ বয়ে আনে।আসলে ব্যাপারটাকে একটু তলিয়ে দেখলে বোঝা যাবে “ঈদ” যেমন অনেক মানুষের মুখে হাসি এনে দেয়,তেমন অনেক মানুষের জীবনের কষ্টের তীব্রতাকে বহু গুণে বাড়িয়ে দেয়….

ছোটবেলায় আমার মাকে একটা কবিতা আওড়াতে শুনেছি,
“” ঈদ এসেছে ঈদ এসেছে আমার তাতে কি,
রঙ বেরঙের নতুন জামা আমি পাবো কি?
ঈদের দিনে সবাই যখন নতুন জামা পড়ে,
মা আমার ছেঁড়া জামাটা আবার সেলাই করে।।”

আমরা যদি একটুখানি আমাদের অন্তরাত্মার দৃষ্টিটাকে জাগরুক করি তবে দেখতে পাবো আমাদের সমাজে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ছোট ছোট অসহায় বাচ্চা গুলোর হাহাকার।কেউ বা তার সন্তানের জন্যে আপনার কাছে হাত পাততে পারেন আবার কেউবা আত্মমর্যাদার ভয়ে আপনার দ্বারস্থ হন না।

আপনি যখন শপিং করতে যান দেখবেন কিছু বাচ্চা টাকার জন্যে আপনাকে ঘিরে ধরে আছে,আর গুটিকতক দাঁড়িয়ে আছে আপনার থেকে কিছুটা দূরে,যার দৃষ্টি আপনার হাতের শপিং ব্যাগটার দিকে হলেও–দৃষ্টিতে ওই ব্যাগের প্রতি কোনো লোভ নেই,আছে পাবার জন্যে প্রবল আশা।যার বিশ্বাস তার বাবা তাকে ঈদের দিন সকাল বেলা হলেও একটা নতুন জামা এনে দেবে।
কিন্তু হায়…!!!
সে আসলে জানেই না,তার কপালটার অবস্থা এতো করূন যে ঈদের দিন সকালে কেন–আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে তার কপালে কোনো নতূন জামা নেই।অসহায় বাবা না পারে আপনার কাছে হাত পাততে আর না পারে তার ছেলের আশ মেটাতে….

বয়সকালে জম্পেশ ঈদ কেটেছে যে মহিলার আজ ঈদের দিনেও তাকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে বাইরের জানালার দিকে – যদি নামাজ শেষ করে তার খোকা একবার তাকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়,যদি একবার সে তার নাতীনাতনিগুলোর হাতে হাত রাখতে পারে। বৃদ্ধাশ্রমের এই ছোট ঘরটায় যে তার মনটা আর বসছে না,তার যে খুব ইচ্ছে করছে খোকার সেই বিরাট বাড়িতে শুধু মাত্র একবার যেতে।না,খোকার বাড়িতে আজ ভালোমন্দ রান্না হয়েছে এইজন্যে নয়,টাকাও চাইতে নয়,রক্তের টান
তো- শুধু মাত্র একবার এই ঈদের দিনে খোকাকে আদর করে দিতে….

কারো কারো ঈদ আবার কারাগারে বন্দি।কারাগারের ওই লোহার কপাট গুলো বেশ শক্ত–ওগুলো ভেদ করে ঈদের আনন্দ যেন আসতেই পারে না…
বাংলাদেশ এটা–আজ বিনা দোষে কারাগারে বন্দি কারো মা,কারো বাবা,কারো সন্তান,কারো বা স্বামী অথবা কারো স্ত্রী।ঈদ তাদেরকে আনন্দ দিতে পারে না,পারে যন্ত্রণাকে বহুগুণ বাড়িয়ে দিতে।ঈদ তাদেরকে খুশী দিতে জানে না,জানে স্মৃতিকাতর করে দিতে,ঈদ জানে না তাদের কষ্টটাকে কি করে মুছে দিতে হয়,ঈদ শুধু জানে কষ্টের তীব্রতার মাত্রাটাকে বাড়াতে….

এই ঈদ–কারো বা আজ খুব কাছের স্বজনের মৃত্যু দিবস, এই ঈদ–ছুটিতে বাড়ি ফিরতে গিয়ে কেড়ে নিয়েছে অনেকের বাবাকে,অনেকের মা কে,অনেকের সন্তানকে,অনেকের স্বামী,স্ত্রী সহ খুব কাছের কোনো মানুষকে….

আমি জানি আপনার আমার একার পক্ষে সম্ভব নয় এইসব মানুষের কষ্ট মুছে দেয়া।তবে হ্যা আমি জানি “আমি” থেকে যদি “আমরা” হতে পারি তবে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়।আমি এও জানি আপনি যদি কেবল মাত্র একবার আপনার স্পিরিচুয়াল পাওয়ার কে জাগিয়ে তুলতে পারেন তবে অবশ্যই আপনি সক্ষম হবেন আপনার সাথে সাথে আপনার আশে পাশের আরও কিছু ঘুমন্ত মানুষকে জাগাতে। আপনার বেশীকিছু করতে হবে না।আপনার শপিং এর ৫% দিয়েই অন্তত ৫টা বাচ্চাকে নতুন জামা কিনে দেয়া যাবে।আমি আপনাকে সারাজীবনের জন্যে বলছিনা,শুধু মাত্র একটা দিনের জন্যে বৃদ্ধাশ্রমে থাকা আপনার মা/বাবাকে বাসায় নিয়ে এলে সম্ভবত আপনার খুব বেশী সমস্যা হবে না।আপনার আশে পাশে থাকা অসহায় মানুষ যারা এই ঈদ একা করছে আপনি চাইলেই ঈদের দিনে তাদের সাথে গিয়ে একটু গল্প করে আসতে পারেন।এতে আপনার যেমন কিছুটা সময় ভালো যাবে,তেমনি ওই অসহায় মানুষগুলো পাবে অনেকটা আশ্বাস….

আমাদের একটু চেষ্টায় ঈদটা যদি সবার হয়ে ওঠে তবে ক্ষতি কি বলুন।আসুন না সবাই এগিয়ে আসি “আমার ঈদ” টাকে “আমাদের ঈদ” এ পরিণত করতে….

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা….

শ্রেয়সী শবনম শ্রেয়া,
দশম শ্রেণী,
বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ময়মনসিংহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *