আজ বিশ্ব হিজাব দিবস

মুসলিম নারীদের একটি বিশেষ পোশাক হিজাব। একই সাথে এটি ইসলামী সংস্কৃতি ও সভ্যতারও প্রতীক। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে নিজেদের সম্মান এবং মর্যাদা রক্ষার মাধ্যম হিসেবে মুসলিম বিশ্বে এই পোশাকটির রয়েছে বিশেষ পরিচিতি। সেক্যুলারিজম প্রসার পাওয়া সত্ত্বেও বিশ্বজুড়ে হিজাব পরিহিত নারীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। রুচির সাথে মানানসই অথচ মার্জিত ও শালীন পোশাক হিসেবে পরিচিতি পাওয়ায় হিজাবের প্রতি রয়েছে নারীদের ব্যাপক সমর্থন ও আকর্ষণ।

এ হিজাবকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য এবং পর্দার ব্যাপারে ইসলামী বিধান অনুসরণকারী সব মুসলিম নারীদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য গত ৬ বছর ধরে নিউ ইয়র্কে নানা রকমের কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব হিজাব দিবস’। এরই ধারাবাহিকতায় আজ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার নিউ ইয়র্কে পালিত ‘বিশ্ব হিজাব দিবস’। এবারের হিজাব দিবসের স্লোগান ‘হিজাব ইজ মাই ফ্রিডম’, ‘হিজাব ইজ মাই প্রটেকশন’, ‘হিজাব ইজ মাই চয়েস’, ‘হিজাব ইজ মাই কভার’ ইত্যাদি।

হিজাব দিবসের কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ সিটি হল প্রাঙ্গণে হিজাব পরিহিতা নারীরা দুপুর ১২টায় জড়ো হবেন। সেখানে একটি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে হিজাববিরোধী মনোভাব পরিহার, ধর্ম ও জাতিগত বিদ্বেষমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হবে।

হিজাব দিবস পালনের অন্যতম সংগঠক বাংলাদেশী অ্যাক্টিভিস্ট মাজেদা জানান, কয়েক বছর আগে নাজমা খান নামক এক বাংলাদেশী ছাত্রী পোশাকের কারণে জ্যামাইকায় আক্রান্ত হন। ওই ঘটনার প্রতিবাদ, নিন্দা এবং সর্বসাধারণকে সচেতন করার জন্য হিজাব দিবস পালন শুরু হয়। শুরু থেকে এখন পর্যন্ত একই চেতনায় দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। কারণ এখনো বিশ্বে ধর্মীয় পোশাক, জাতিগত কারণে বৈষম্যের ঘটনা অব্যাহত রয়েছে।

মাজেদা আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান প্রদত্ত অধিকার খর্ব করার বিরুদ্ধে নীরবতা অবলম্বনের সুযোগ নেই। ন্যায় বিচারের স্বার্থে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। হিজাব দিবসে সে সুযোগ দেয় সব অধিকার সচেতন মানুষকে। আপনি কোন ধর্মের, বর্ণের বা গোত্রের, সেটি বড় কথা নয়, আপনি একজন মানুষ এ চেতনায় জড়ো হন হিজাব দিবসের কর্মসূচিতে।

হিজাব দিবসের সাথে ইতোমধ্যে সংহতি প্রকাশ করেছেন ৪৫টি দেশের ৭০ জনের অধিক রাষ্ট্রদূত, খ্যাতনামা রাজনীতিক ও স্কলারসহ টাইম ম্যাগাজিন, সিএনএনের মতো বিশ্বখ্যাত গণমাধ্যম। ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে ওয়ার্ল্ড হিজাবডে ডট কম পরিচালিত এক জরিপে দেখা যায়, শতকরা ৯৪ ভাগ নারী হিজাবে নিজেদেরকে নিপীড়িত মনে করেন না। শতকরা ৯৩ ভাগ নারী মনে করেন তাদের ওপর হিজাব চাপিয়ে দেয়া হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *